১৫ বছর বয়সেই গবেষণা, মাধ্যমিক দেওয়ার বয়সে পিএইচডি করে সকলকে চমকে দিল এই খুদে

১৫ বছর বয়সেই গবেষণা, মাধ্যমিক দেওয়ার বয়সে পিএইচডি করে সকলকে চমকে দিল এই খুদে

বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়া এমন একটি প্লাটফর্ম যেখানে প্রতিটি মানুষের ট্যালেন্ট মুহূর্তের মধ্যেই ছড়িয়ে পড়ে সারা বিশ্বে। বর্তমানে 15 বছর বয়সী এক বাচ্চা ছেলে তার কাজ কর্মের মাধ্যমে অবাক করে দিয়েছে বিশ্বের সকল লোক। মাত্র 7 বছর বয়সে বালকটি একসাথে তিনটি কলেজে ভর্তি হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ শেষ করে মাত্র 14 বছর বয়সী সে গবেষণায় ভর্তি হয়।

বর্তমানে বালকটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োকেমিক্যাল ইন্জিনিয়ারিং এর স্নাতক ডাইরেক্টর হিসেবে প্রস্তুতি নিচ্ছে। বালকটির নাম তানিষ্ক আব্রাহাম। ইতিমধ্যেই বালকটি আবিষ্কার করেছে যে একটি পুড়ে যাওয়া রোগীর শরীরে কোনো রকম স্পর্শ না করে হৃদ গতি মাপার যন্ত্র।

বালকটির এই আবিষ্কার যেন গোটা বিজ্ঞান মহলকে অবাক করে দিয়েছে। ক্যালিফোর্নিয়ায় এই বালকটি বসবাস করলেও তার আদি বাড়ি ভারতের কেরালায়। মা-বাবা এবং দাদু ঠাকমা শিক্ষিত হবার ফলে শিক্ষার পরিবেশ এই মানুষ হয়েছে তানিষ্ক। নার্সারিতে পড়ার বয়সে অনেক উঁচু ক্লাসে নানান ধরনের জটিল অংক সমাধান করে ফেলব এবং এটিই তার বাবা-মাকে শুরু থেকে অবাক করেছিল।

ছোটবেলার তার এই সমস্ত অসাধারণ ঘটনা গুলির উপর ভিত্তি করে তার মা-বাবা বুঝতে পারেন যে তানিষ্ক আর পাঁচটা সাধারণ মানুষের মতো নয়। মাত্র 7 বছর বয়সে তিনটে কলেজের ডিগ্রী করছে একসাথে ভর্তি হয় বাচ্চাটি। বর্তমানে তানিষ্ক ক্যান্সারের মতো মরণ রোগের ঔষধ এর উপর গবেষণা করতে চায়।