ভিক্ষা করে আয় করেছেন ২ কোটি! তার মাসিক আয় বড় বড় কর্পারেট সংস্থার কর্মীদেরও লজ্জায় ফেলবে

ভিক্ষা করে আয় করেছেন ২ কোটি! তার মাসিক আয় বড় বড় কর্পারেট সংস্থার কর্মীদেরও লজ্জায় ফেলবে

যারা অন্যের কাছ থেকে ভিক্ষা করেন, তাদের সংসার খুব কষ্ট চলে এমনটাই আমাদের ধারণা। হ্যাঁ বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এমনটাই হয়। খুব কষ্ট করে ভিক্ষা করে হয়তো কিছু মানুষ তাদের দিন গুজরান করেন। তবে এই দেশে এমন কিছু ভিখারিও আছেন, যারা একজন সরকারি বা বেসরকারি কর্মচারীর থেকেও অনেক বেশি টাকা আয় করেন এবং সেইসাথে তাদের জীবনযাপন যথেষ্ট বিলাসবহুল।

আমাদের দেশের এই রকমই একজন ধনী ভিখারী (Richest beggar)হলেন, ভরত জৈন। ভরত মুম্বাইয়ের (Mumbai) প্যারেল এলাকায় ভিক্ষা করেন। সর্বভারতীয় একটি সংবাদ মাধ্যমের প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়েছিলো যে,‘ভরত‌ ই দেশের সবচেয়ে ধনী ভিখারী।’

ভরতের বয়স ৪৯ বছর। তার মাসিক আয় ৭৫ হাজারের‌ও বেশি। তার পরিবারে রয়েছে বাবা, দুই ভাই, স্ত্রী ও দুই ছেলে। ভরতের একটি দোকানে রয়েছে, সেটি ভাড়া দিয়েই সে মাসে মাসে ১০ হাজার টাকা করে পায়। জানা গেছে যে, ভরতের নিজস্ব দুটো অ্যাপার্টমেন্ট আছে, যার মধ্যে একটির বাজার মূল্য ৭০ লক্ষ টাকা। বর্তমানে তিনি প্রায় ২ কোটি টাকার মালিক।

ভিক্ষা করে আয় করেছেন ২ কোটি! তার মাসিক আয় বড় বড় কর্পারেট সংস্থার কর্মীদেরও লজ্জায় ফেলবে

ভরতের পাশাপাশি কলকাতার (Kolkata) অপর একজন ভিখারী লক্ষ্মী দাস‌ও ভিক্ষা করে ব্যাঙ্কে বিপুল পরিমাণে টাকা সঞ্চয় করেছেন। জানা যায় ১৯৬৪ সাল থেকেই তিনি যখন ভিক্ষা শুরু করেন, তখন তার বয়স মাত্র ১৬ বছর। সেই সময় থেকে দীর্ঘ এতগুলো বছর ভিক্ষা করে বিপুল অর্থ সঞ্চয় করেছেন তিনি। লক্ষ্মী দাসের মাসিক আয় ৩০ হাজার টাকা। এই ভাবেই লক্ষ্মী ও ভরতের মতো অনেকেই ভিক্ষা করাকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন আর এই ভাবেই তারা অর্থ সঞ্চয় করে চলেছেন।