রোজ সকালে পান্তাভাত খাওয়া শরীরের জন্য ভালো, জেনে নিন এর উপকারীতা

রোজ সকালে পান্তাভাত খাওয়া শরীরের জন্য ভালো, জেনে নিন এর উপকারীতা


প্রত্যেক বাঙালি পান্তা ভাত খেতে খুব ভালোবাসেন। পান্তা ভাতের সাথে কাঁচা লঙ্কা ও পেঁয়াজ আর যেন অমৃতের সমান। প্রত্যেক বাঙালিই চায় পান্তা ভাত খেয়ে ঘুমাতে। পান্তাভাত প্রস্তুত করা খুবই সহজ। রান্না করা ভাতকে একটি গোটা রাত জলের মধ্যে ডুবিয়ে রাখলে পান্তাভাত প্রস্তুত হয়।

ভাতে প্রচন্ড পরিমাণে শর্করা থাকে। ভাতে জল দিয়ে রাখলে বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া বা ইস্ট এই শর্করাকে ভেঙে ল্যাকটিক অ্যাসিড এবং ইথানল প্রস্তুত করে। ল্যাকটিক এসিড তৈরি হবার ফলে ভাতের অম্লত্ব বেড়ে যায়। এই কারণেই অন্যান্য ব্যাকটেরিয়ারা ভাতকে নষ্ট করতে পারে না।

আরো পড়ুন -  গরম ভাতের সঙ্গে খেতে জিভে জল আনা অসাধারণ স্বাদের নিরামিষ পাপড়ের ডালনা, রইল রেসিপি

সাধারণত 100 গ্রাম গরম ভাতে 3.4 মিলিগ্রাম আয়রন দেখা যায়। কিন্তু এই 100 গ্রাম ভাতকে 12 ঘন্টা জলে ভিজিয়ে রাখার পর পান্তাভাতে পরিণত করলে আয়রনের পরিমাণ বেড়ে দাঁড়ায় 73.91 মিলিগ্রাম।

আরো পড়ুন -  একঘেয়ে ডিম খেয়ে বিরক্তি! বাড়িতেই বানিয়ে ফেলুন ডিমের ডেভিল, রইল রেসিপি

ঠিক তেমনই 100 গ্রাম গরম ভাতে ক্যালসিয়ামের পরিমাণ 21 মিলিগ্রাম এবং সমপরিমাণ ভাতকে পান্তাভাতে রূপান্তরিত করলে ক্যালসিয়ামের পরিমাণ বেড়ে দাঁড়ায় 850 মিলিগ্রাম।

100 গ্রাম গরম ভাতে সোডিয়ামের পরিমাণ 475 মিলিগ্রাম এবং সমপরিমাণ পান্তা ভাতে সোডিয়ামের পরিমাণ 303 মিলিগ্রাম।

পান্তাভাত একটি শর্করা জাতীয় খাবার। এটি বি-12 এবং বি-6 জাতীয় ভিটামিনের উৎস। পান্তা ভাতে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম এবং আয়রন থাকে। এছাড়াও পান্তাভাত শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে এবং শরীরকে সতেজ রাখতে সাহায্য করে।

আরো পড়ুন -  দুপুরের জন্য দূর্দান্ত একটি খাবার! বানিয়ে ফেলুন কাঁচ কলার কোপ্তা কারি, রইল রেসিপি

পান্তা ভাত খাবার ফলে আমাদের শরীরের ইমিউনিটি পাওয়ার বৃদ্ধি পায়, শরীর হালকা হয় এবং বিভিন্ন প্রয়োজনীয় ব্যাকটেরিয়া গুলি আমাদের শরীরে উৎপন্ন হয়।