Nusrat Jahan: ‘জীবনের লক্ষ্যকে গুরুত্ব দিলেই কমবে বন্ধুর সংখ্যা’, কার উদ্দেশ্যে এই বার্তা নুসরতের?

Nusrat Jahan: 'জীবনের লক্ষ্যকে গুরুত্ব দিলেই কমবে বন্ধুর সংখ্যা', কার উদ্দেশ্যে এই বার্তা নুসরতের?


২০২১ সালটা অভিনেত্রী তথা সাংসদ নুসরত জাহানের জন্য খুব স্পেশ্যাল। কারণ বছরের প্রথম থেকে এক্কেবারে নতুন জীবন শুরু করেছেন নুসরত। আগস্টের শেষে ছেলের মা হয়েছেন, অন্যদিকে নিজের সন্তানের পিতৃপরিচয় না জানিয়ে জন্ম দিয়েছেন। অবশ্য এখন ঈশানের বাবা কে তা সকলেই জেনে গিয়েছে। অন্যদিকে নিখিলের সাথে নিজের বিয়েকে সহবাসের নাম দিয়েছেন আর অভিনেতা যশ দাশগুপ্তর সঙ্গে নিজের ঘনিষ্ঠতার কথা প্রকাশ এনেছেন। এখন ছেলে আর যশকে নিয়ে বেশ আনন্দেই দিন কাটছে নায়িকার। কিন্তু এত কিছু আনন্দের মধ্যেও বন্ধু হারাচ্ছেন নুসরত।

এবার এই বন্ধু হারানো নিয়ে মুখ খুললেন অভিনেত্রী। কিন্তু কার উদ্দেশ্যে বললেন এই কথা? ঈশানকে জন্ম দেওয়ার পর খুব বেশি দিন কাজ থেকে বিরতি নেন নি নুসরত, এর মধ্যেই শুরু করে দিয়েছেন নানান বিজ্ঞাপন আর নতুন ছবির কাজ। এছাড়াও বিভিন্ন ইভেন্ট প্রমোশনের কাজ করে চলেছেন তিনি। আর যশের সাথে ফটোশুটেও মজেছেন। হয়তো নিজের জীবনের প্রতি আর কাজের প্রতি এখন অনেক বেশি ফোকাশড নুসরত জাহান। তবে এর মাঝে কিছুদিন আগে নানান সমালোচনার সম্মুখীন হন। আর এই কঠিন সময় তিনি চিনতে পারছেন তাঁর আসল বন্ধু কে বা কারা।

আরো পড়ুন -  অসাধারণ লোকগীতি গেয়ে ‘সারেগামাপা’র মঞ্চ মাতালেন অনন্যা, প্রশংসা বাপ্পি লাহিড়ীর

শনিবার কারও নাম উল্লেখ না করেই সোশ্যাল মিডিয়ায় যেন কিছু মানুষের উদ্দেশ্যে নিজের মনের কথা লিখলেন নুসরত। তিনি লিখেছেন, ‘জীবনের লক্ষ্য নিয়ে তুমি যত সিরিয়াস হবে ততোই তোমার বন্ধুর সংখ্যা কমবে’। অর্থাৎ নুসরত এই কদিনে নিজেও হয়তো কাছের কিছু বন্ধুদের হারিয়েছেন। বেশ কিছুদিন ধরেই নুসরত এবং মিমির বন্ধুত্ব ভাঙন নিয়ে নানান কথা উঠছে। এমনকি নুসরতের অন্তঃসত্ত্বা পিরিয়ডে তাঁর প্রিয়জনদের দরকার ছিল সেই সময় দেখা যায়নি মিমি কে। বরং থেকেছেন তনুশ্রী এবং শ্রাবন্তীর মতো বন্ধুরা। অবশ্য ঈশানের জন্মের সময় নতুন মাম্মা আর ঈশানকে সোশ্যাল মিডিয়াতে ভালোবাসা জানিয়েছেন।

আরো পড়ুন -  ছেলে ঈশানকে বাড়িতে রেখে পার্টিতে ব্যস্ত যশরত! দুধের বাচ্চাকে নিয়ে চিন্তা নেটিজেনদের

Nusrat Jahan: 'জীবনের লক্ষ্যকে গুরুত্ব দিলেই কমবে বন্ধুর সংখ্যা', কার উদ্দেশ্যে এই বার্তা নুসরতের?

তবে ঈশানের দেড় মাস বয়স হতে চললো তবে নুসরতের বাড়িতে ছোটুর সাথে দেখা করেননি। এমনকি ছোট্ট ঈশান কে নিয়ে আর কিছুই বলেননি অভিনেত্রী তথা সাংসদ মিমি চক্রবর্তী। এমনকি বহুদিন একসঙ্গে দেখা যায়নি মিমি এবং নুসরত কে৷ যেখানে একটা সময় একে অপরের জুতো থেকে জামা সবকিছুই অদলবদল করে পরতেন, সুযোগ পেলেই দুজনে নানান খুনসুটি করতেন। তাহলে কি নুসরতের এই লেখা আসলে মিমিকে উদ্দেশ্য করে৷ অবশ্য দুজনে সরাসরি কখনোই নিজেদের মধ্যে দূরত্ব নিয়ে কোনো কথা । বরং তাঁদের কথায়, এখনো দুজনের বন্ধুত্ব একই আছে। কিন্তু যা রটে তার কিছু তো বটে। তবে নুসরতের এই পোষ্ট ফের উস্কে দিচ্ছে মিমি ও নুসরত বন্ধুত্বের দুরত্ব।

আরো পড়ুন -  জঙ্গিযোগে জেলে যাচ্ছিলেন সঞ্জয় দত্ত, ছেলের জন্য গর্ববোধ করেছিলেন বাবা সুনীল দত্ত