অল্প বয়সে বাবা-মাকে হারিয়েছেন সন্ধ্যা রায়, সিনেমার গল্পকেও হার মানাবে অভিনেত্রীর জীবন

অল্প বয়সে বাবা-মাকে হারিয়েছেন সন্ধ্যা রায়, সিনেমার গল্পকেও হার মানাবে অভিনেত্রীর জীবন


আশির দশকের নামকরা অভিনেত্রীদের মধ্যে একজন অন্যতম হচ্ছেন সন্ধ্যা রায়। সেই সময়ের সমস্ত অভিনেত্রী ও অভিনেতাদের মধ্যে স্বতন্ত্রতা লক্ষ্য করা যেত। তাদের অভিনয় সাথে বাস্তবের মিল দেখা যেত। আশির দশকের ছবিগুলির মধ্যে মমতাময়ী মা এবং লক্ষ্মীমন্ত বউয়ের অভিনয় গুলি যে সমস্ত অভিনেতারা খুব ভালোভাবে করতে পারতেন তাদের মধ্যে একজন অন্যতম অভিনেত্রী হচ্ছেন সন্ধ্যা রায়।

খুব অল্প সময়ের মধ্যেই তিনি তাঁর অভিনয় দিয়ে দর্শকের মন জয় করে নিয়েছিলেন। পতিব্রতা স্ত্রীর থেকে মমতাময়ী মা, প্রত্যেকটি ভূমিকায় তিনি নজর কেড়েছিলেন দর্শকদের। রূপ এবং অভিনয় দিয়ে তিনি বাঙালি ছবিতে পতিব্রতা স্ত্রী এবং জননীর স্থান অর্জন করেছিলেন।

আরো পড়ুন -  তিন রাণীকে নিয়ে নাজেহাল অবস্থা রাজার, আপাতত প্রেম থেকে সন্ন্যাস নিচ্ছেন রাহুল

অল্প বয়সে বাবা-মাকে হারিয়েছেন সন্ধ্যা রায়, সিনেমার গল্পকেও হার মানাবে অভিনেত্রীর জীবন

অল্প বয়স থেকেই জীবন সংগ্রামে লড়াই চালিয়ে গেছেন তিনি। ছোটবেলাতেই মা ও বাবাকে হারান তিনি। 7 বছর বয়সে বাবা এবং 9 বছর বয়সে মাকে হারানোর পর মামার কাছেই মানুষ হন তিনি। মামার বাড়ি থেকেই পড়াশোনা এবং বড় হওয়া। সেই সময় মেয়েদের আজকের মত স্বাধীনতা দেওয়া হতো না।

আরো পড়ুন -  গায়িকা ইমন বেছে নিতে চলেছেন এক নতুন পেশা! জল্পনা তুঙ্গে

অল্প বয়সে বাবা-মাকে হারিয়েছেন সন্ধ্যা রায়, সিনেমার গল্পকেও হার মানাবে অভিনেত্রীর জীবন

1957 সালে অভিনেত্রী হবার বড় স্বপ্ন নিয়ে ভারতে আসেন তিনি। সেই স্বপ্নকে সফল করার জন্য শুরু করেন কঠিন পরিশ্রম। প্রথম সুযোগ পান ‘মামলার ফল’ ছবিতে। এরপর থেকেই নিজের অভিনয় দিয়ে দর্শকদের মনে জায়গা করে নিতে শুরু করেন তিনি। উনার হিট ছবিগুলির মধ্যে অন্যতম “বাবা তারকনাথ, ঠগীনি, অশনি সংকেত, মা আমার মা” ইত্যাদি। তিনি সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হিসেবে যোগদান করেছিলেন। তিনি 2014 সালের 16 তম লোকসভা নির্বাচনে নির্বাচিত হয়েছিলেন।

আরো পড়ুন -  অবৈধ বাচ্চায় ভরে যাবে রাজ্য! মা হওয়ার পরেও অশ্লীল ট্রোলের শিকার নুসরত

অল্প বয়সে বাবা-মাকে হারিয়েছেন সন্ধ্যা রায়, সিনেমার গল্পকেও হার মানাবে অভিনেত্রীর জীবন

তরুণ মজুমদারের সাথে বিবাহ বন্ধনে যুক্ত হয়েছিলেন সন্ধ্যা রায়। বিবাহ জীবন সুখের না হবার ফলে তাদের সম্পর্ক বেশিদিন টেকেনি। কিছুদিনের মধ্যেই তাদের মধ্যে বিচ্ছেদ হয়ে যায়।