মাদক কাণ্ডে গ্রেফতার আরিয়ান খান, ‘ছেলের নেশায় ফকির বাবা’, শাহরুখকে খোঁচা দিলেন KRK

মাদক কাণ্ডে গ্রেফতার আরিয়ান খান, ‘ছেলের নেশায় ফকির বাবা’, শাহরুখকে খোঁচা দিলেন KRK


কিছুক্ষণ আগেই মাদক-কান্ডে এনসিবি গ্রেফতার করেছে শাহরুখ খান (Shahrukh Khan)-এর পুত্র আরিয়ান খান (Aryan Khan)-কে। সুনীল শেঠি (Suniel Shetty)-র মতো কিছু তারকা আরিয়ানকে সোশ্যাল মিডিয়ায় নির্দোষ দাবি করলেও নিজেকে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ ফিল্ম সমালোচক মনে করা কমল আর. খান (Kamal R. Khan) অবশ্য পরিস্থিতির সুযোগ নিতে ছাড়লেন না। নাম না করেই তিনি কটাক্ষ করেছেন শাহরুখ খান (Shahrukh Khan)-কে।

অভিনেতা শাহরুখ খান বলিউডের বেতাজ বাদশা হিসাবে পরিচিত। তাঁর পুত্র আরিয়ানকে এনসিবি গ্রেফতার করেছে। এই প্রসঙ্গ তুলে কেআরকে টুইট করেছেন, যে যত বড়ই ধনকুবের হন না কেন, ছেলে নেশা করলে তিনি ফকির। কারণ তিনি ছেলেকে সঠিক শিক্ষা দিতে পারেননি। কমলের মন্তব্য নিয়ে দ্বিধাবিভক্ত

নেটিজেনরা। তাঁদের একাংশ কেআরকে-র কথাকে সমর্থন করলেও বাকিরা বলছেন, শাহরুখের শিক্ষার উপর তাঁদের সম্পূর্ণ ভরসা রয়েছে। কিন্তু এত কিছুর মাঝে চুপ রয়েছেন শাহরুখ খান। তিনি আপাতত তাঁর উকিল সতীশ মানশিন্দে (Satish Manshinde)-কে নিয়োগ করেছেন আরিয়ানের জন্য।

প্রায় বাইশ ঘন্টার তদন্ত ও আট ঘন্টা ধরে জেরা করার পর আরিয়ানকে গ্রেফতার করেছে এনসিবি। তাঁকে মেডিক্যাল চেক-আপের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে মুম্বইয়ের জে.জে.হাসপাতালে এনসিবি সূত্রে প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, আরিয়ান স্বীকার করে নিয়েছেন, কর্ডেলিয়া নামক প্রমোদতরীর রেভ পার্টিতে তিনি মাদক নিয়েছেন। তা নিয়ে আরিয়ানের অনুশোচনা রয়েছে। তিনি জানিয়েছেন, মাদক সেবন করে ভুল করেছেন তিনি। তবে এর আগে আরিয়ান এরকম কিছু করেননি বলে জানিয়েছেন তিনি। আরিয়ানের মোবাইল বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। খতিয়ে দেখা হচ্ছে তাঁর হোয়্যাটসঅ্যাপ চ্যাট। এমনকি তিনি কোনও মাদকচক্রের সাথে যুক্ত রয়েছেন কিনা, তা অনুসন্ধান করা হচ্ছে। বন্ধুদের বিভিন্ন গ্রুপে তিনি কি ধরনের আলোচনা করতেন, তা-ও এখন তদন্তকারীদের নজরে রয়েছে।

শনিবার রাতে কর্ডেলিয়ার ওই তারকাখচিত পার্টিতে এনসিবি-র মুম্বই জোনাল ডিরেক্টর সমীর ওয়াংখেড়ে (Sameer Wankhede) ও তাঁর টিম সাধারণ পোশাকে উপস্থিত ছিলেন। তাঁদের কাছে গোপন সূত্রে খবর ছিল, ওই পার্টিতে ড্রাগ সরবরাহ করা হয়েছে। তাঁরা জানিয়েছেন, কর্ডেলিয়া মাঝ সমুদ্রে পৌঁছানোর পর এই ড্রাগ পার্টি শুরু হয়। তবে এখনও অবধি বোঝা যাচ্ছে না, আদৌ কি আরিয়ান বা অন্যান্য আমন্ত্রিতরা জানতেন, কর্ডেলিয়ার পার্টিটি প্রকৃতপক্ষে একটি ড্রাগ পার্টি? কারণ এই পার্টির আমন্ত্রিতদের জন্য দামী উপহারের হাতছানি ছিল যা কোনো পার্টিতে থাকে কিনা সন্দেহ! পার্টির আয়োজকরা জানতেন, সেলিব্রিটি থেকে সাধারণ মানুষ, কেউই এই ধরনের সুযোগ হারাতে চান না। কিন্তু এই সুযোগ নিতে গিয়েই অনেকে ফেঁসে যান বিভিন্ন চক্রে।

শনিবার রাতে আরিয়ান ছাড়াও মুম্বইয়ের কর্ডেলিয়া পার্টিতে উপস্থিত ছিলেন আরও কয়েকজন বলিউড তারকা। কিন্তু এনসিবি যখন হানা দেয়, তখন ওই পার্টিতে কাউকে মাদক সেবন করতে দেখা যায়নি। এই ধরনের পার্টি সম্পর্কে আরিয়ানের কাছ থেকে তথ্য পাওয়া যেতে পারে বলে মনে করছেন তদন্তকারী অফিসাররা। কর্ডেলিয়ার পার্টিতে প্রবেশমূল‍্য প্রায় এক লক্ষ টাকার কাছাকাছি ছিল। কিন্তু ভিভিআইপি তালিকায় নাম থাকায় কোনও প্রবেশমূল‍্য ছাড়াই এন্ট্রি পেয়েছিলেন আরিয়ান। তিনি নিজেই জেরায় এই কথা জানিয়েছেন।

এনসিবি-র তরফে প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, আরিয়ানের বিরুদ্ধে কোনও তথ্য পাওয়া গেলে তাঁকে ‘নারকোটিক ড্রাগস অ্যান্ড সাইকোট্রপিক সাবস্ট‍্যান্সেস’ বা এনডিপিএস আইনে মামলার আওতায় আনা হতে পারে।

আরো পড়ুন -  Ananya Panday: গাঁজা যে একপ্রকার মাদক, সেটা জানতামই না: বিস্ফোরক দাবি চাঙ্কি কন্যা অনন্যার