কখনও যোগ্য স্ত্রীর সম্মান পান নি, সিনেমার গল্পকেও হার মানাবে জয়া প্রদার জীবন কাহিনী

কখনও যোগ্য স্ত্রীর সম্মান পান নি, সিনেমার গল্পকেও হার মানাবে জয়া প্রদার জীবন কাহিনী


আশির দশকের জনপ্রিয় হিন্দি ছবির অভিনেত্রীদের কথা বললে উঠে আসে অভিনেত্রী জয়া প্রদার নাম। তিনি নিজের অভিনয় জীবন শুরু করেছিলেন মাত্র 14 বছর বয়স থেকে। বাবা একজন প্রযোজক হওয়ায় খুব বেশি পরিশ্রম করতে হয়নি বড় পর্দায় আসার জন্য। তবে নিজেকে বড় পর্দার যোগ্য করে তুলতে অনেক কঠিন পরিশ্রম করতে হয়েছিল তাকে। হিন্দি ছাড়াও মালায়লাম, তামিল, তেলেগু ছবিতে অভিনয় করতে দেখা গেছে ওনাকে।

অভিনয়জীবনের মাঝামাঝি সময় একবার আয়কর সংক্রান্ত কিছু সমস্যার সম্মুখীন হয়েছিলেন তিনি। সেই সমস্যা থেকে ওনাকে উদ্ধার করতে সাহায্য করেছিলেন প্রযোজক শ্রীকান্ত নাহাটার। পরবর্তীকালে তাদের সম্পর্ক বন্ধুত্বের এবং বন্ধুত্ব থেকে প্রেমে পরিণত হয়। শ্রীকান্ত নহাটার বিবাহিত হওয়া সত্বেও নিজের প্রথম স্ত্রীকে ডিভোর্স না দিয়েই অভিনেত্রীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে চেয়েছিলেন।

বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার পর তাদের বিয়ে নিয়ে চারিদিকে বেশ আলাপ আলোচনা শুরু হয়েছিল। প্রযোজক শ্রীকান্তের প্রথম পক্ষের তিনটি সন্তান ছিল ফলে জয়া প্রদার ইচ্ছে থাকলেও মা হতে পারেননি তিনি। পরবর্তীকালে নিজের বোনের ছেলেকে নিজের সন্তানের মত মানুষ করেন তিনি। অভিনেত্রী 30 বছরের অভিনয় জীবনে 300 টি বড় বড় ছবিতে অভিনয় করেছেন।

বর্তমানে অভিনেত্রীর বয়স ষাটের কাছাকাছি। রাজনীতির মাধ্যমে নিজের জীবনকে নতুন করে শুরু করেছেন তিনি। গত লোকসভা নির্বাচনের আগে বিজেপিতে যোগদান করে নানা প্রতিবন্ধকতার মাঝে আটকে না পড়ে নিজেকে দ্বিতীয়বার প্রতিষ্ঠা করেছেন তিনি।

আরো পড়ুন -  ছেলে বলিউডের জনপ্রিয় কোরিওগ্রাফার হলেও আজও চা বিক্রি করেই সংসার চালান ধর্মেশের বাবা